অনেকেই দেশকে নিয়ে অনেক চিন্তা ভাবনা করে। আমি আর এসব এখন করিনা। কারন আমি পাগল হলেও অতো বোকা নই। কেউ ব্যাস্ত হয়েছেন রোড এক্সিডেন্ট নিয়ে। অনেক রিসার্চ ফিসার্চ করে বের করেছেন ২০১৮ সালে বাংলাদেশে ৮-৯ হাজার লোক সড়ক দূর্ঘটনায় মারা গেছেন।
কেউ গবেষণা করছেন ধর্ষণ নিয়ে আর কোন কোন (থাক আমি খারাপ কথা বলা ছেড়ে দিয়েছি) বিজ্ঞ ব্যক্তিরা গবেষণা করছেন বাল্য বিয়ে, মধ্যম উন্নয়নের দেশ। আরো কতো কিছু নিয়ে কতো গবেষণা। আমিতো পাগল মানুষ ভাই তাই বাধ্য হয়ে পত্রিকা পড়া-ই ছেড়ে দিয়েছি।
ভেবে দেখুন এক লোকের হয়েছে ব্লাড ক্যান্সার। এখন তার ক্যান্সারের চিকিৎসা আগে করাবেন নাকি তার চুলে কলপ করে তার চেহারা আকর্ষণীয় করা নিয়ে ব্যস্ত হবেন। তার সর্দি লেগেছে বছরে কবার, কবার সে পাতলা পায়খানার ট্যাবলেট খেলো, তার মাঝে মাঝে যে বমি হয় এ নিয়েও বিশাল গবেষণা করলেন। করে এ বিষয়ে একটা ফুল ডায়েট চার্ট, একটা বাজেট আরো যত্তসব হাবিজাবি করলেন। এবং ঘোষণা ও দিলেন যে সে এখন মধ্যম মানের একটা চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে। অন্যদিকে সে ধীরে ধীরে শেষ হয়ে গেলো ক্যান্সার নামক রোগে। কি লাভ হবে এই ফালতু বিষয় নিয়ে মাথা ঘামিয়ে? আগে তার ক্যান্সারের চিকিৎসা করে তারপর নাহয় এই বিষয় গুলোর চিকিৎসা করলাম। আমি বলছিনা যে সর্দি বা পাতলা পায়খানা কে হালকা করে দেখার সু্যোগ আছে। তবে নিশ্চই ক্যান্সারের রুগির ক্যান্সারের চিকিৎসার চেয়ে এই বিষয় গুলোকে বেশি গুরুত্ব দিতে আপনারাও বলবেন না। আমার দেশটার অবস্থাও ভাই এমন। দেশটার ক্যান্সার হয়েছে। আগে তাকে ক্যান্সারের চিকিৎসা করাতে হবে তাহলে অন্য সমস্যা আস্তে আস্তে কমে যাবে। আর এই মূল চিকিৎসা নাহলে অন্য সমস্যা গুলো আরো বাড়তেই থাকবে। যতই চেষ্টা করেন তা কমানো সম্ভব না। পাগলের মতো অনেক প্রলাপ করলাম। যাহোক আপনারা আপনাদের কাজেই ব্যাস্ত থাকেন, আমার মতো এভাবে ভাবতে গেলে হয়তো আপনিও পাগল হয়ে যাবেন।

মতামত জানান