হেনতেন

ধারাবাহিক বাঙ্গালীর হাসির গল্প - 1 পর্ব (1)

অল্প বয়সেই আজিজের বাপ-মা মরিয়া গেল। বুড়াে নানা আজিজকে আনিয়া তাঁহার বাড়িতে রাখিলেন। কিন্তু তাহার মতাে দুষ্ট ছেলেকে সামাল দিবেন কতদিন? আজ এটা নষ্ট করে- কাল ওটা বাজারে বিক্রি করিয়া মেঠাই খায়। অনেক ধকম-ধামক মারপিট করিয়াও। আজিজকে ভালাে করা গেল … Continue reading হেনতেন

বাড়িতে ভূত থাকলে

কিছু করার উপায় নেই । ভূতটার সাথে বন্ধুত্ব পাতিয়ে ফেলতে হবে। বেশির ভাগ ভূত লাজুক হয়। আড়ালে থাকে। প্রথমে তোমার দেখতে হবে বাড়িতে ভূত আছে কি না। নতুন বাড়িতে থাকে না। পুরানো বাড়ি ওদের পছন্দ। রাতের বেলা বাথ্রুমের ট্যাঁপ খামাখাই … Continue reading বাড়িতে ভূত থাকলে

কয়েক ফোঁটা জোসনার রঙ – ২

মাছ ধরার নাকি রাশি থাকে। কোন রাশি কে জানে। মীন রাশি হতে পারে। ঐ রাশির ছবিতে তো দুটো জোড়া মাছ দেখি সব সময়। কেউ কেউ বলতো শঙ্করের বাপের মাছের রাশি আছে। যাদের মাছের রাশি আছে তাদের কোন চিন্তা নেই । … Continue reading কয়েক ফোঁটা জোসনার রঙ – ২

কয়েক ফোঁটা জোসনার রঙ – ১

তখন শীতের শুরুতে কবিতা সন্ধ্যা বা কবিতা পাঠের আসর হত আমাদের শহরে।। কারো বাসায় বা পৌরসভার কোন সস্তা মিলনায়তনে। তেমন কিছু না। একগাদা তরুণ ছোকরা, মাঝবয়েসী লোক পাঞ্জাবি পায়জামা পরে তম্বা মুখে বসে থাকত। একজন একজন করে দাঁড়িয়ে নিজের লেখা … Continue reading কয়েক ফোঁটা জোসনার রঙ – ১

চম্পাবতী

ধারাবাহিক সুন্দরবনের উপকথা - 1 পর্ব (1)

রাজপুরীর মাঝেই মন্দির, ভিতর থেকে দরজা আটা । চম্পাবতী তাপসী কুমারী । সে দেবীর আরাধনা শেষে রাতে মন্দিরেই ঘুমায় । অনেক বেলা হলো, চম্পাবতী এখনো মন্দিরের দ্বার খোলে নি। “চম্পা, চম্পা!’ লীলাবতী বেশ কয়েকবার মন্দিরের দরজা টোকা দিলেন। কিন্তু মেয়ের … Continue reading চম্পাবতী

নিঝুমপুরের কাকতাড়ুয়া

দুপুরবেলা বাবলু যখন বের হচ্ছিল তখনই দারোয়ানটা বাধা দিয়ে বলে, এই সুনসান দুফুরে কই যাইতাছেন?  দুফুরে মান দুপুরে সেটা জানে বাবলু। দারোয়ান লোকটা বেশ সহজ সরল। মাথা ভর্তি কলমি শাকের মত ঝাঁকরা চুল। মুখটা তোম্বা ধরনের, অনেকটা পেঁপের মত। নাকটা … Continue reading নিঝুমপুরের কাকতাড়ুয়া

ক্ষুদে তিমি শিকারী

আমি যে শহরটাতে ছোট বেলায় থাকতাম সেটা ছিল ভারি নিঝুম এক শহর। তত বেশি দালানবাড়ি ছিল না। বেশ ফাঁকাফাঁকা। অনেক বেশি ঝোপঝাড় আর গাছপালা ভর্তি। আকন্দ, বনজুঁই, বনতেজপাতা, আসাম লতা, দল কলস আর শেয়ালকাঁটার ঝোপে গিজগিজ করত চারিদিক। একটা আতা … Continue reading ক্ষুদে তিমি শিকারী

বাড়ির উপর বাড়াবাড়ি

কলকাতার বাইরে কোথাও হাওয়াবদলে যাবার তোড়জোড় হচ্ছিল। বোঁচকাবচকি  বাঁধা বিছানাপত্র ঠিকঠাক, সব কিছুর গোছগাছ করছিলেন গিন্নি। গোবর্ধন ছিলো তদারকিতে। একজন কী বলেছেন তা জানিস? মুখ খুললেন হর্ষবর্ধন, ‘হাওয়া- বদলের আসল কথাটা হলো খাওয়াবদল | তামাম মুল্পঃকেই তো এক হাওয়া ! হাওয়া … Continue reading বাড়ির উপর বাড়াবাড়ি

ভয়ের জ্যামিতি

ভয়ের জ্যামিতি বড় অদ্ভুত। কোনো সূত্রই মানেনা। নিজেকেই প্রশ্ন করুননা,‌কী দেখলে আপনি ভয় পেতে পারেন? গভীর রাতে ঘুম ভেঙ্গে গেল আপনার।কামরাতে আপনি একা।পুরো বাড়ি ফাঁকা।কেউ নেই।বাইরে জোছনার রাত।তরল সোনার মত জোছনা।হঠাত দেখলেন জানালার পাশে দাঁড়িয়ে আছে ভয়াল এক মূর্তি।চোখ দুটো … Continue reading ভয়ের জ্যামিতি