ধারাবাহিক ক্ষুদে বিজ্ঞানীর ক্লাব - 27 পর্ব (28)

শীতের সকালে এই পরীক্ষাটা করলাম।
রোজ কমলা আনে বাসায়। বাইরে হলুদ রঙের রোদ। বারান্দায় বসে শীতের সকাল দেখি। তখন মনে হল, কমলা কি পানিতে ভাসবে না ডুবে যাবে ?
তোমার কি মনে হয় ?
আচ্ছা কাউকে জিজ্ঞেস না করে বরং আমরাই পরীক্ষা করে দেখি।
মাত্র তিনটে জিনিস লাগবে আমাদের।
১। আস্ত একটা কমলালেবু।
২। একটা পাত্র। হতে পারে কাঁচের বাউল, মগ বা বালতি। যা খুশি।
৩। পানি।
পাত্র পানিতে ভর্তি কর। এবার আস্তে করে কমলাটা পানিতে ছেড়ে দাও।
সময় নিয়ে দেখ কি হচ্ছে।
এবার কমলার খোসা খুলে নাও। সব খোসা খুলে আবার পানিতে ছেড়ে দাও।
এই দুই বারের ঘটনায় কোন পার্থক্য দেখতে পেলে ?
প্রথমবার যখন কমলার গায়ে খোসা ছিল তখন কমলা ভাসছিল।
যখন খোসা খুলে নিলে তখন দেখা গেল কমলা ডুবে গেছে। বা ডুবু ডুবু অবস্থা।
কিন্তু কেন ?
কমলার খোসার মধ্যে প্রচুর বাতাস ভর্তি ছোট ছোট জায়গা আছে।এয়ার পকেট বলে।
এই রকম বাতাস ভর্তি পিচ্চি কোষগুলোকে। সেই জন্যই সেই জন্যই খোসাসহ কমলাটা
ভেসে ছিল। আর খোসা খুলে নিতেই সব বাতাস চলে গেল। কে ভাসিয়ে রাখবে এখন
কমলাটাকে ? কেউ না। তাই তখন বেচারা ডুব দিচ্ছিল।
এই প্রসঙ্গে একটা জিনিস মনে রাখবে জিনিসের ঘনত্বের কারনে ভাসে বা ডুবে।
ঘনত্ব কম হলে পানিতে ভেসে থাকবে। বেশি হলেই ডুবে যাবে।
অনেক সময় দেখবে জাহাজে বা নৌকায় বেশি মানুষ উঠলে সেটা ডুবে যায়।
বাসায় নিজেই পরীক্ষা করে দেখ কোন কোন ফল বা কাঠের টুকরো পানিতে সহজে ভাসে।

Series Navigationপৃথিবীর জন্য ভালবাসা >>

মতামত জানান