স্বাধীনতার ২৬টি বই এর আগের খন্ডে আমরা মূলত আমাদের মুক্তিযুদ্ধ, তাঁর আগের প্রেক্ষাপট এবং মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ের ইতিহাস নিয়ে লেখা বইগুলো নিয়ে আলোচনা করেছিলাম। আজকের খন্ডে আমরা সরাসরি ইতিহাসের বই এর বদলে ইতিহাসের উপর ভিত্তি করে লেখা গল্প উপন্যাসের কিছু বই নিয়ে আলোচনা করব।

রাইফেল রোটি আওরাত - আনোয়ার পাশা

এই উপন্যাসটি লেখা হয়েছে ১৯৭১ এর এপ্রিল থেকে জুন মাসের মধ্যবর্তী সময়ে। চোখের সামনে ঘটা ঘটনা তাৎক্ষনিক ভাবেই কল্পনার আদলে নিয়ে সে কল্পনার চেয়েও প্রকট বাস্তবতাকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এই উপন্যাসটিতে। এই মধ্যেই আবার ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর নিহত হোন লেখক আনোয়ার পাশা। যে অন্যায়,  অবিচার, যুদ্ধ-বিগ্রহ কলমের কালিতে অসাধারণ গাথুনিতে ফুটিয়ে তুলেছিলেন সেই উপন্যাসেরই যেন একটি চরিত্র হয়ে গেলেন তিনি।

ক্রাচের কর্নেল - শাহাদুজ্জামান

বইটার কথা অনেকটা এর শুরুর কয়েকটা লাইন দিয়েই বলা যায়। বইটির শুরু হয়েছে এইভাবে, “একটি কর্নেলের গল্প শোনা যাক। যুদ্ধাহত ক্রাচে ভর দিয়ে হাঁটা এক কর্নেল। কিংবা এ গল্প হয়তো ঐ কর্নেলের নয়। জাদুর হাওয়া লাগা আরও অনেক মানুষের। নাগরদোলায় চেপে বসা এক জনপদের। জাদুর হাওয়া লাগাঁ এক সময়ের।”

কালরাত্রি খণ্ডচিত্র - শওকত ওসমান

 

মুক্তিযুদ্ধের পর অনেক দিন কেটে গেছে । ধীরে ধীরে এগিয়ে গিয়েছে বাংলাদেশ। প্রায় ক্ষয়ে যাওয়া একটা জাতি ধীরে ধীরে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে শুরু করেছে বিশ্ব দরবারে। কিন্তু তবু একটা ক্ষত, একটা সময়, একটা কালো রাত আজও তাড়া করে ফেরে পুরো বাংলাদেশের মানুষকে। সেই পচিশে মার্চ রাত, সেই নারকীয় হত্যাকাণ্ড এর প্রেক্ষাপটেই বাংলা ভাষার প্রখ্যাত সাহিত্যিক শওকত ওসমানের লেখা এই বই।

হাঙর নদীর গ্রেনেড - সেলিনা হোসেন

 

শহর নয়, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে লেখা এই উপন্যাসের মূল প্রেক্ষাপট গ্রাম। নিরব, নিশ্চিন্ত, শান্ত, শিষ্ট গ্রাম বাংলা। একটি যুদ্ধ, একটা স্বাধীন দেশের প্রসব বেদনা কিভাবে গ্রামীণ জন-জীবনের ভোল পালটে দিয়েছিল তার একটি চমৎকার উপস্থাপন ঘটেছে এই উপন্যাসের পরতে পরতে।

নিষিদ্ধ লোবান - সৈয়দ শামসুল হক

 

মুক্তিযুদ্ধ কেন্দ্রিক সম্প্রতি নির্মিত একট বহুল আলোচিত চলচ্চিত্র “গেরিলা” আর এই “গেরিলা” চলচ্চিত্রটি আরেকটি বিখ্যাত এবং মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে লেখা অন্যতম শ্রেষ্ঠ উপন্যাস “নিষিদ্ধ লোবান” অবলম্বনে নির্মিত। মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ের ঘটনা অত্যন্ত চমৎকারভাবে ফুটে উঠেছে উপন্যাসটাতে।

১৯৭১ - হুমায়ূন আহমেদ

 

কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদের লেখা অন্যতম শ্রেষ্ঠ বই ১৯৭১। বইটিতে মুক্তিযুদ্ধের ঘটনা প্রবাহ, দুর্ভোগ, প্রত্যাশা অত্যন্ত সুকৌশলে উপস্থাপন করা হয়েছে। সেই সাথে আছে হুমায়ূন আহমেদের স্বভাব সুলভ ঝরঝরে লিখুনি এবং ঘটনার অত্যন্ত সহজ সরল উপস্থাপন।

কালো ঘোড়া - ইমদাদুল হক মিলন

 

কালোঘোড়া

কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনের মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক উপন্যাস কালো ঘোড়া। ১৯৭১, মুক্তিযুদ্ধ, জেগে ওঠা গ্রাম শহর, প্রতিবাদ, বিশ্বাসঘাতক রাজাকার বাহিনী, মুক্তিযোদ্ধা, যুদ্ধ এসব কিছুর মিশেলে অপূর্ব বর্ণনার গাঁথুনিতে ইতিহাসই যেন ফুটে উঠেছে উপন্যাসের আদলে।

যুদ্ধ - আহসান হাবীব

যুদ্ধ

আহসান হাবীবের এই বইটিতে মুক্তিযুদ্ধ এবং মানুষের চিন্তা, চেতনা, দ্বিধা, দ্বন্দ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। অত্যন্ত ঝরঝরে ভাষায় লেখা এই বইটি বেশ সুপাঠ্য।

এগারোটি সেক্টরের বিজয় বাহিনী - মেজর রফিকুল ইসলাম পিএসসি

এগারোটি সেক্টরের বিজয় কাহিনী

মুক্তিযুদ্ধের সময় যে আমাদের পুরো দেশকে মোট এগারোটি সেক্টরে ভাগ করে আমাদের সাহসী মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধ করেছেন সেটাতো আমরা সবাই জানি।

কিন্তু কিভাবে একে একে এগারোটা সেক্টরকে শত্রুমুক্ত করে বিজয় ছিনিয়ে আনা হয়েছিল সেটা কি আমরা জানি?
এই বইটিতে অত্যন্ত চমৎকার বর্ণনায় তুলে ধরা হয়েছে এগারো সেক্টরের বিজয় গাথার গল্প।

 

মুক্তিযুদ্ধের কিশোর গল্প - সেলিনা হোসেন

 

সেলিনা হোসেনের লেখা এই বইটিতে মিলবে তাঁর লেখা বেশ কিছু মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে লেখা গল্প। শিশু-কিশোরদের কাছে গল্পের আদলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পৌঁছে দেয়ার একটা বেশ ভালো উপায় হতে পারে এই বইটি।

বাংলাদেশ - সৈয়দ মুজতবা আলী

বাংলাদেশ

ঘটনার সহজ উপস্থাপন এর জন্য সৈয়দ মুজতবা আলীর জুড়ি মেলা ভার। আর সেই তিনিই যখন মুক্তিযুদ্ধের মত একটা গাম্ভীর্য পূর্ণ ব্যাপার নিয়ে লেখালেখি করেন, তখন সেটা বেশ উপভোগ্য কিছু হবে এটা বলাই যায়। বাংলাদেশ বইটিতে রয়েছে সৈয়দ মুজতবা আলীর বেশ কয়েকটি গল্প যাতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ঘটনা ও তার পরবর্তি সময়ের কথা।

ফেরারী ডায়েরী - আলাউদ্দিন আল আজাদ

ফেরারী ডায়েরী

বিখ্যাত ঔপন্যাসিক আলাউদ্দিন আল আজাদ তাঁর মুক্তিযুদ্ধকালীন নয় মাসের দিনলিপি তুলে ধরেছেন এই বইটিতে।

বীরশ্রেষ্ঠ - জাহানারা ইমাম

 

শহীদ জননী জাহানারা ইমাম এই বইটিতে আমাদের সাত বীরশ্রেষ্ঠ, তাঁদের জীবনী, মুক্তিযুদ্ধে তাঁদের অবদান এবং কিভাবে বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করতে করতে এক সময় শহীদ হয়েছেন সেসব কথা তুলে ধরা হয়েছে। বইটি আমাদেরকে সাত বীরশ্রেষ্ঠ সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে সাহায্য করার পাশাপাশি আমাদেরকে দেশপ্রেমে করে তুলবে উজ্জীবিত।

 

 

মতামত জানান