স্বাধীনতা বাঙালী জাতির অবিসংবাদিত অর্জন। কিন্তু এই অর্জনের আকাশে সাংস্কৃতিক প্রেরণার মেঘখন্ড ক্রমে রাজনৈতিক চেতনার বরিষণে দেখা দিয়েছিলো। এ প্রসঙ্গে বাঙালীর ভাষা আন্দোলন থেকে একাত্তরের ধারাবাহিক সংগ্রাম ও আন্দোলনের দৃশ্যপট স্মরণে এসে দৃষ্টিসীমানাকে নানা অভিপ্রায়ে দেখার দৃশ্যলোক সৃজন করে। বস্তুত বাহান্নর ভাষা আন্দোলনের সাংস্কৃতিক চেতনাই পরবর্তীকালে সময়ের দাবিতে রাজনৈতিক চেতনায় রূপ নিলে বাঙালী জাতি মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক দলিলপত্রে তার স্বীকারোক্তি পাওয়া যায়। অত্যন্ত প্রাসঙ্গিকভাবে বলতে গেলে, স্বাধীনতার উত্তরকালে বাঙলা নাটকের অভিযাত্রা সম্পর্কেও এরূপ কথা স্বীকার করা যেতে পারে এবং সে অভিপ্রায় আলোচ্য প্রবন্ধের মূলে অন্বিত।

 

বাঙলা নাটক, বিশেষ করে বাংলাদেশের নাটকের ক্রমোন্নতির কোথা যদি বলা যায়- তবে আমাদের স্বাধীনতার উত্তরকালকেই বিবেচনা করতে হবে এবং তা সঙ্গত কারণেই প্রাসঙ্গিক। বাঙলা নাটকের আদি ও মধ্যযুগ এবং স্বাধীনতা পূর্বকালের নাটক বাঙালী জাতির অস্তিত্বের সাথে খানিক হলেও অস্তিমান। এমনকি মধ্যযুগের বাঙলা নাট্যের নানা আঙ্গিক ও পরিবেশনা দর্শক-শ্রোতাকে বিমুগ্ধ করে। কিন্তু এসব নাটককে প্রায়ই আমরা লোকনাট্যের সীমায় বিবেচনা করে থাকি। তবে বাংলাদেশের নাটক-বাঙালীর অস্তিত্ব ও ধমনীর সঙ্গে তার যোগসূত্র।

Image result for লোকনাট্য
বহরমপুর রেপার্টরী থিয়েটার

বাঙলার স্বাধীনতা পূর্বকালের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য এই নাট্যের অস্থিসন্ধির সঙ্গে একান্তে বাঁধা। তাকে অস্বীকার করার কোনো কারণ নেই। প্রাকৃত বাঙলা নাটকের পূর্বপটভূমি ও অধ্যায়কে স্বীকার করেই আমাদের নাট্য অভিযাত্রা শুরু, বলতে হবে। অত্যন্ত দুঃখের বিষয় হলেও স্বীকার করতে হবে, বাঙলা নাটকের উত্তর অধ্যায়ে খানিকটা মধ্যখন্ডণের দায় আমাদের কাঁধে আসে। পাশ্চাত্য প্রভাবিত প্রসেনিয়াম থিয়েটার বাঙলা নাটকের মূল ধারাকে আবছায়া দিয়ে আড়াল করতে সক্ষম হলেও শেষ পর্যন্ত সে ছায়া সরে যায়। রবীন্দ্র মহাভুবনের আলো এসে পড়ে বাঙলা নাটকের মঞ্চে ও আসরে। তবে তার ও আগে কবি-নাট্যকার মধুসূদনকে স্মরণ করতে হয়। পাশ্চাত্য রীতি অনুসরণ করেও তিনি বাঙলা নাটককে স্বকীয় সত্ত্বায় সাধনা করার পথটি খুলে দিয়েছিলেন। এমনকি বাঙলা নাটকে তিনি ব্ল্যাংক ভার্স বা অমিত্র ছন্দ প্রয়োগের সম্ভাবনার কথাও বলেছিলেন। তবে এই মহাকবির নির্দেশিত পথে আমরা চলি নি; সামান্য অনুসরণ করেছি মাত্র! সে প্রসঙ্গ থাকুক। স্বাধীনতার পূর্বকালে তবুও বাঙলা নাটকের উত্তমপুরুষরূপে আমরা জসিমউদ্দিন আসকার ইবনে শাইখ, নূরুল মোমেন, মুনির চৌধুরী, সাইদ আহমেদ প্রমুখের উপস্থিতি বাঙলা নাট্যমঞ্চে প্রবলভাবে প্রত্যক্ষ করি।

Image result for কবর নাটক
মুনির চৌধুরীর কবর নাটকের একটি দৃশ্য

অতঃপর স্বাধীনতার উত্তরকালে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের নাটক। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, স্বাধীনতার প্রাক্কালে অর্থাৎ মুক্তিযুদ্ধকালে বাঙালির সাংস্কৃতিক আন্দোলন অগ্নিগর্ভে রূপ নিলে সংস্কৃতির অন্যান্য শাখার সঙ্গে নাটক অত্যন্ত গূরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় অবতীর্ন হয়েছিল। বলতে দ্বিধা নেই, স্বাধীনতা উত্তরকালে বাঙলা নাটক যেন পূর্বধারারই একান্ত অভিজ্ঞান।

 

যুদ্ধবিদ্ধস্ত বাংলাদেশকে পুনর্গঠনের কাজে এ দেশের উদ্যমী তরুণদের অংশগ্রহণ সকল কর্মক্ষেত্রেই আমরা প্রত্যক্ষ করি। শিল্পসাহিত্যের অন্যান্য শাখার মতো নাটকেও তার প্রতিফলন স্বাভাবিক ঘটনা। বলা বাহুল্য, এ ক্ষেত্রে খানিক ব্যতিক্রম ঘটেছে। উদ্যম ও আয়োজন এখানেই জেনো প্রবল হয়ে উঠেছে। স্বাধীনতার উত্তরকালে বাঙলা নাটকের অর্জনও তাই অধিক বলতে হবে।

 

আমাদের স্বাধীনতার উত্তরকালে অনেক নিবেদিত প্রাণ নাট্য সংগঠক, নাট্যকর্মী ও নাট্যকারের আবির্ভাব ঘটেছে। গড়ে উঠেছে বিভিন্ন নাট্যদল। শুরুকালটায় সেই বেইলি রোডের নাটক পাড়ার কথা সবাই স্মরণ করে। শেখায়ের গাইড হাউজ ও মহিলা সমিতি মিলনায়তনে নিয়মিত নাটক মঞ্চায়নের পাশাপাশি সারাদেশেও নাটকের মঞ্চায়ন হয়েছে। অতঃপর ক্রমে গড়ে উঠে বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন। এই ফেডারেশনের প্রধান উদ্দেশ্য সমগ্র দেশের নাট্যকর্মীদের সংগঠিত করে সাংস্কৃতিক আন্দোলন ও ঐক্য গঠন করা। মঞ্চের ভাষায় মানুষের অধিকার ও মানবতার মহৎ বানী বাংলাদেশ ও সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়া। আমরা এই কাজে কতটুকু সফল হয়েছি তা কালের বিচারে একেবারে গৌণ নয়। মহিলা সমিতি ও গাইড হাউজের পুননির্মানের ক্ষণে বাঙ্লাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর জাতীয় নাট্যশালা, এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হল ও স্টুডিও থিয়েটার হলে নাটকের মঞ্চায়ন জেনো এখন নৈমিত্তিক ঘটনা। বাংলাদেশের নাটক এখন এগিয়ে চলছে। কিন্তু শুরুরকালটা অতটা সহজ ছিলোনা। নাটকের পাণ্ডুলিপি ও নাট্যকর্মীর সঙ্কট বরাবরই ছিলো। বিশেষ করে মহিলা নাট্যকর্মীর অভাব বিশেষ ভাবে পরিলক্ষিত হয়েছে। এখনো আছে। কারণ, বাংলাদেশের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপট ও ধর্মীয় বোধে নাটক বা নাট্যাভিনয় এর ভাবনা খুব ইতিবাচক নয়। হয়তো আরো কারো আছে। তবুও নাটক হচ্ছে। বাঙলা নাটকের আদি ঐতিহ্য ঘাঁটলে দেখা যায়, সেকালে নারী চরিত্রে পুরুষ অথবা হিজড়া অভিনয় করতো। এখন সময়ে পরিবর্তন এসেছে। নাটকের অভিনয়ে পুরুষের পাশে এখন নারীগণের উপস্থিতি বিশেষভাবে লক্ষ্যনীয়। বাঙলা নাটক ও নাট্যমঞ্চের উন্নয়নেই তা সম্ভবপর হয়েছে।

 

আলোচ্য প্রবন্ধের আলোচনায় বাঙলা নাটক ও নাট্যকারগণের অবদানের বিষয়টি অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক। বিশেষ করে, বাংলাদেশের মৌলিক নাটক রচয়িতাগণের অবদান তো অনস্বিকার্য। এ ক্ষেত্রে নাট্যকার জিয়তা হায়দার, মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, সৈয়দ শামসুল হক, মামুনূর রশীদ, আব্দুল্লাহ আল মামুন, সেলিম আল দ্বীন, এস এম সোলায়মান প্রমুখের অবদান ঈর্ষনীয়। উল্লেখ্য, এদের মধ্যে শেষোক্ত চারজন প্রয়াত এবং অবশিষ্ট নাট্যজনেরা জীবন্ত কিংবদন্তী। এরা নাটক রচনার পাশাপাশি প্রায় সকলে নাট্য নির্দেশনা ও নাট্য সংগঠন পরিচালনার ক্ষেত্রে বিশেষ দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। বাংলাদেশের নাটককে কথিত নাট্যকারগণ নানাভাবে সমৃদ্ধ করেছেন; মঞ্চের গতিকে চলমান ও বহমান রেখেছেন। অভিনেতা ও মঞ্চকর্মী তৈরিতে এদের ভূমিকা আজ বহুজনবিদিত।

 

নাট্যকার জিয়া হায়দারের শুভ্রাসুন্দর, কল্যাণী,  আনন্দ উল্লেখযোগ্য নাটক। নাট্যকার মমতাজউদ্দিন আহমদ রচিত স্বাধীনতা আমার স্বাধীনতা, এবারের সংগ্রাম, স্বাধীনতার সংগ্রাম প্রভৃতি মুক্তিযুদ্ধকালের নাটক। অতঃপর স্বাধীনতার পর তিনি রচনা করেন বর্ণচোরা, কী চাহ শঙ্খচিল, স্পার্টাকাস বিষয়ক জটিলতা, হরিণ চিতা চিল প্রভৃতি।

মমতাজউদ্দিন আহমদ কৃত বর্ণচোরা নাটকে যুদ্ধোত্তর বাঙলাদেশে অপরাধীচক্রের আত্মপরিচয় গোপন রাখার কৌশলটি নাট্যগল্পের আধারে বিধৃত হয়েছে। তাঁর কি চাই শঙ্খচিল নাটকে বাঙালী বীরাঙ্গনা নারীর অন্তর্বেদনা এক আশ্চর্য শিল্পভাষায় উপস্থাপিত হয়েছে। এ নাটকে বীরাঙ্গনা রওশান আরার মনঃকষ্ট শুধু তাঁর একার নয়- তিনি যেন মুক্তিযুদ্ধে নিগৃহীত সকল নারীগণের প্রতীক। স্পার্টাকাস বিষয়ক জটিলতা নাটকে ক্রীতদাসের মুক্তি ও প্রতিবাদের কথা প্রবলভাবে উচ্চারিত হয়েছে। পঁচাত্তরের পটভূমিতে লেখা হরিণ চিতা চিল নাটকে রূপকের আবরণে তৎকালীন সময়ের রাজনৈতিক ও সামাজিক চেহারার চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। এই নাট্যকারের বহুল মঞ্চায়িত ও আলোচিত নাটক হলো সাতঘাটের কানাকড়ি। এ নাটকে সামরিক শাসনামলের নানা অনাচার ও অনিয়মের চিত্রটি উপস্থাপিত হয়েছে এবং এতে স্বৈরতন্ত্রের নেতিবাচক প্রভাবে সমাজ ও মানুষের অস্বাভাবিক পরিবর্তন ও অবক্ষয়ের ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে। সমকালীন রাজনৈতিক চেতনার নাটক হিসেবে সাতঘাটের কানাকড়ি নাট্যকারের উল্লেখযোগ্য রচনা।

Related image
পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়

সৈয়দ শামসুল হক সামন্তবাদ ও সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে রচনা করেন নাটক- নূরুলদীনের সারাজীবন। এ নাটকে ঔপনিবেশ আমলের শাসন, শোষণ ও বঞ্চনার প্রেক্ষাপটে সমকালীন শাসক ও সমাজের কথাও বলতে চেয়েছেন। উক্ত নাটকে প্রতিবাদের তীব্র কণ্ঠ যে কোনো কালের সমাজপতি ও শাসকের জন্য ভীতিকর বলতে হবে। নাটকে আছে-

হাসে কাই? কাই হাসে প্যাঁচার মতন?
যদি কোনো মহাজন, অত্যাচারী হন,
যদি কোনো দালাল কি অপদল হন
তবে রক্ষা নাই, বাহে, আজি শ্যাষ দিন,
তোমার মরণ কিম্বা হামার জীবন।
জয় নূরলদীন।
উপরোক্ত অনুবন্ধে সামন্ত প্রভুদের ভয় দেখানোর পাশাপাশি বাঙালী প্রান্তজীবনের জয়ের আকাঙ্ক্ষার কথাটিও অভিব্যক্ত হয়েছে। এই নাট্যকারের আরেক মঞ্চসফল ও শিল্পগুণে ঋদ্ধ নাটক হলো পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়। এটি কাব্যনাট্য। উক্ত নাটকে নারী পীড়নের পাশাপাশি পাকিস্তানী মিলিশিয়া বাহি৯নীদের প্রতি এ দেশের কারো কারো প্রীতির অপকীর্তিও উপস্থাপিত হয়েছে। নাটকের অন্তিম দৃশ্যে জনতার উদ্দেশ্যে মাদবর কন্যার উক্তিঃ
‘জিজ্ঞাস করেন তাঁরে, এক রাত্রির পরে/ সাধের জামাই তাঁর ক্যান নাই ঘরে? রাত্রি দুইফরে/ সে ক্যান ফালায় গেলো আমার জীবন/ হঠাত খাটাশে খাওয়া হাসের মতন? করেন জিজ্ঞাসা?’
এই প্রেক্ষাপট থেকে আমাদের স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের যুদ্ধকালীন সময়ের নেতিবাচক ভূমিকা সম্পর্কে সম্যক ধারনা পাওয়া যায়। নাট্যকারের যুদ্ধ এবং যুদ্ধ ছাড়া অন্যান্য নাটকেও সমকালীন জীবনবোধ ও চেতনার ইঙ্গিত লভ্য।
অতঃপর নাট্যকার মামুনুর রশীদের প্রসঙ্গে এলে এ দেশের প্রান্তজীবন ও শ্রেণী চেতনার বিষয়টি উল্লেখযোগ্য রূপে দৃশ্যমান হয়ে ওঠে। বিশেষত তাঁর লেখা ওরা কদম আলী, ওরা আছে বলেই, ইবলিশ প্রভৃতি নাটকে সমাজের অস্পৃশ্যজনাদের বিপরীতে কপট সাধু ও শাসকজনের আসল রূপ ধরা পড়েছে। নাট্যকার ওরা কদম আলী নাটকে বোবা কদম আলীর পাশে জনতার যোগদান খুবী ইতিবাচক, যেমন-
ইন্সপেক্টরঃ    একটিও যেন পালাতে না পারে।
সারেংঃ          আই কদম আলী।
রাবেয়াঃ         আমি কদম আলী।
ইন্সপেক্টরঃ     ননসেন্স, হু ইজ কদম আলী?
সবাইঃ           আমরা কদম আলী।
ইন্সপেক্টরঃ     ইডিয়ট! কদম আলী কে?
সবাইঃ           আমরা।
এস্থলে জনতার একাত্ম হবার সঙ্গে শ্রেণিচেতনার বিষয়টি যেন মুখ্য হয়ে উঠেছে। জয়জয়ন্তী, সংক্রান্তি, রাঢ়াঙ প্রভৃতি নাটকে নাট্যকারের শিল্পবোধ ও শিল্পচেতনা সম্পর্কে সম্যক ধারণা পাওয়া যায়।
নাট্যকার আব্দুল্লাহ আল মামুন কৃত শপথ, সুবচন নির্বাসনে, এখন দুঃসময়, এবার ধরা দাও, সেনাপতি, গোলাপ বাগান, মেহেরজান আরেকবার, আমার সন্তান আমার আঁচল, এখনো ক্রীতদাস, অরক্ষিত মতিঝিল, মেরাজ ফকিরের মা, স্পর্ধা, তোমরাই, আয়নায় বন্ধুর মুখ, দ্যাশের মানুষ, কোকিলারা প্রভৃতি নাটকে মুক্তিযুদ্ধ ও উত্তরকালের সামাজিক ও রাজনৈতিক সমস্যার নানান চিত্র বহুমাত্রিক বক্তব্য ও ব্যঞ্চনায় উপস্থিত হয়েছে।
কোকিলারা, আব্দুল্লাহ আল মামুনের বহুল আলোচিত ও উল্লেখযোগ্য নাটক। সমকালীন নারীবাদী নাটক হিসেবেও এর মূল্যায়ন হতে পারে। এ নাটকের প্রধান আকর্ষণ হলো- এটি একক নারী চরিত্রের নাটক। বিশ্ব সাহিত্য এমনকি বাঙলা সাহিত্যেও একক চরিত্রের নাটকের সংখ্যা হাতেগোনা কয়েকটি মাত্র! এরূপ প্রেক্ষাপট বিবেচনায় কোকিলারা বিশেষ মূল্য দাবী করে। কোকিলারা টিন পর্বের আখ্যান নিয়ে রচিত নাটক। প্রথম পর্বে গ্রাম্য বালিকা কোকিলা শহরে গৃহপরিচারিকার কাজ করতে এসে প্রেম ও প্রতারণার স্বীকার হলে গর্ভে সন্তান আসে, কূটকৌশলে চোর সাব্যস্ত হয়ে জেল হাজতে যায় এবং শেষে আত্মহত্যা করে। দ্বিতীয় কোকিলা মধ্যবিত্তের সংসারে স্বামীর ক্রীড়নক। স্বামীর দ্বিতীয় বিবাহের কারণে সে সংসার পরিত্যক্তা হয়ে অসহায় জীবনপথে পা বাড়ায়। কিন্তু কোনো অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে পারেনা। তৃতীয় পর্বে কোকিলা একজন প্রতিবাদী নারী। প্রথম ও দ্বিতীয় কোকিলার হয়ে ওকালতি করে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার ও প্রতিবাদী হয়ে ওঠে। কোকিলারা প্রকৃত অর্থেই নারীবাদী নাটক। কোকিলারা আব্দুল্লাহ আল মামুনের শ্রেষ্ঠ রচনাও বটে। এ নাটক তাকে অনেকদিন বাঁচিয়ে রাখবে।
স্বাধীনতার উত্তরকালে বাঙলা নাটকের প্রথিতযশা নাট্যজনা সেলিম আল দ্বীন। এই নাট্যকারের শিল্পবোধ ও জীবনচেতনা তো অভ্রস্পর্শী। তাঁর রচিত উল্লেখযোগ্য নাটক হলো- শকুন্তলা, কির্ত্তনখোলা, কেরামতমঙ্গল, হাত হদাই, যৈবতি কইন্যার মন, একটি মারমা রূপকথা, বনপাংশুল, প্রাচ্য, নিমজ্জন, পুত্র, স্বর্নবোয়াল, ঊষাউৎসব, স্বপ্নরমণিগণ প্রভৃতি। কেরামতমঙ্গল নাটকে এক বৃহদায়তন প্রেক্ষাপটে প্রতিবাদী মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধোত্তরকালের কথা বিধৃত করা হয়েছে। এগারো খণ্ড দৃশ্যে লিখিত এ নাটকে সাম্প্রদায়িকতার দোযখ, জন্ম ও সমাজ বঞ্চনার দোযখ, প্রতিবাদী যোদ্ধাদের দোযখ, হাজত দোযখ, মিশনারিদের সৃষ্ট দোযখ, যুদ্ধোত্তর বাংলাদেশের মানুষদের আশাভঙ্গের দোযখ, আত্মদগ্ধ মানুষদের আশাভঙ্গের দোযখ, দৃশ্য বিলোপী দোজখের কথা বিধৃত হয়েছে। প্রত্যেক দোযখে প্রতিবাদ ও চেতনার অগ্নীশ্বর যেনো নির্ঘুম অঙ্গারে জ্বলে উঠেছে। নাটকে- পথিক কেরামত শেষ অবধি প্রায় যিশুর কাছাকাছি পৌঁছে যান এবং তিনি হয়ে উঠেন বাঙালীর জাতীয় চরিত্র। সেজন্য রাষ্ট্রীয় সকল অনাচার ও বঞ্চনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী চেতনার দিব্যাস্ত্র হয়ে উঠেছে এই নাটক। হাত হদাই নাটকে সমুদ্র উপকূলীয় আঞ্চলিক মানুষের জীবনের তরঙ্গ বিক্ষুব্ধ চিত্র প্রতিফলিত হয়েছে। চাকা নাটকে হত্যার বিরুদ্ধে মানবিক আবেদন ও মানব মুক্তির আকাঙ্ক্ষা বাহের গাড়োয়ানের কণ্ঠে তারস্বরে ধ্বনি ও প্রতিধ্বনি হয়েছে।
সেলিম আল দ্বীন কৃত অন্যান্য নাটকেও গভীর জীবনবোধ ও সমাজবাস্তবতা প্রত্যক্ষ করা যায়। তিনি বাঙালির প্রাচীন ও মধ্যযুগের শিল্পদর্শন ও আঙ্গিকের সঙ্গে নিজস্ব শিল্পপ্রজ্ঞার সম্মিলনে এক ঈর্ষনীয় নাট্যকৃতি নির্মান করেন। বলতে দ্বিধা নেই, সমকালীন বাঙলা নাট্যমঞ্চে তাঁর অনুসরণ ও নানা পরীক্ষা নীরিক্ষা চলছে।
বাংলাদেশে আরো অনেক প্রবীণ ও নবীন নাট্যকারের কর্মকৃতির সাক্ষাত আমরা পাই। কিন্তু স্বল্পায়তন আলোচনার এই অধ্যায়ে সকলের নাট্যকৃতির উল্লেখ তো অসম্ভব। তবে এক কথায় বলা যায়, বর্ত্মানে বাঙলা নাটক নিয়ে অনেক আশাব্যঞ্জক কাজ হচ্ছে। বাঙলা নাটকের সম্ভাবনায় অভিযাত্রাকে তাই স্বাগত জানাই। জয় হোক বাঙলা নাটক ও নাট্যমঞ্চের।

মতামত জানান